কবিতা

সঙ্কলকের কথা

নিলাদ্রি বাগচী

গত শতাব্দীর নয়ের দশকের পশ্চিম বাংলার কবিদের নির্মাণ সঙ্কলন এই পাতা। প্রতিনিধিত্ব মুলক সঙ্কলন নয়। মুষ্টিমেয় কবির দায়বদ্ধতার প্রতীক এ সঙ্কলন।

আসলে এই কবিতার পাতা সঙ্কলনের দায়িত্বে আমার অস্বস্তি আমার স্বস্তিকে ছাপিয়ে বহুগুণ। যাঁদের লেখা চেয়েছিলাম তাঁদের সবার সাথে যোগাযোগ না করে উঠতে পারার অস্বস্তি; করতে পারলেও শেষ অবধি সংগ্রহ করে না উঠতে পারার অস্বস্তি। সময়ে এক গ্রহণযোগ্য ও পুষ্ট সঙ্কলন তৈরি করে উঠতে না পারার অস্বস্তি।

দশক কবিতার সার্বিকে কোন ভুমিকা রাখে কিনা এই বিতর্ক থেকে দূরে দাঁড়িয়ে একটা কথা বলাই যায় যে প্রায় একই সময়ে যারা লিখতে এসেছেন তাঁদের চিন্তনে, লিখনে, প্রকাশ পদ্ধতিতে একই সময়ে লিখতে আসার চিহ্ন উপস্থিত থেকে যায়। প্রজন্মের প্রতিনিধিত্ব করে তাঁদের বিন্যস্ত অক্ষরমালা।

প্রসঙ্গক্রমে, বন্ধু বলছিল, মেঘে মেঘে তো আমাদেরও কম হল না, এবার দেখবি আচমকা এক এক করে... তার আগে একটা গেট টুগেদার করি চল। ওর হালকা শব্দের মোড়কে মহাকালের স্বর আলতো বেজে উঠল যেন। গেট টুগেদার তাই মাথায় ঘুরছে সেই থেকে। এ সঙ্কলন সেই গেট টুগেদারের ভার্চুয়াল সুরুয়াৎ। ছোট করে। আশা, অচিরেই একটা বড় গেট টুগেদারে পৌঁছে যাব আমরা, আপনারা সহায় থাকলে।